আন্তর্জাতিক ক্রিকেটক্রিকেট

প্রলয়ংকারী সুনামিতে ধ্বংস হয়েছিল এই ঐতিহাসিক স্টেডিয়াম

সারা বিশ্বে ছবির মতো দেখতে সুন্দর যতো ক্রিকেট স্টেডিয়াম আছে তার একটি শ্রীলঙ্কার গল স্টেডিয়াম। শ্রীলঙ্কার দক্ষিণাঞ্চলে এই গল ক্রিকেট স্টেডিয়ামটি অনেক বেশি বিখ্যাত একারণে যে এর পেছনেই ভারত মহাসাগর। সেখানে বসে খেলা দেখার সময় সমুদ্রের অপূর্ব নৈসর্গিক দৃশ্যও চোখে পড়ে।

২০০৪ সালের সুনামির আঘাতে ক্রিকেট গ্রাউন্ডটি ধ্বংস হয়ে যায়। এই সুনামিতে শ্রীলঙ্কায় ৩১,০০০ মানুষ নিহত হয়।

এর পর ২০০৭ সাল পর্যন্ত সব খেলা বন্ধ ছিল এই মাঠে। ২০০৭ সালে আবার নতুন করে গ্যালারি করে এই মাঠে খেলার জন্য উদ্বোধন করা হয়।

গল স্টেডিয়ামের পাশেই সপ্তদশ শতাব্দীতে নির্মিত একটি ডাচ দুর্গ আছে। যা জাতিসংঘের শিক্ষা বিজ্ঞান ও সংস্কৃতি বিষয়ক সংস্থা ইউনেস্কো এই দুর্গটিকে বিশ্ব ঐতিহ্য এলাকা বলে মর্যাদা দিয়েছে।

এখন আবার স্টেডিয়ামটি হুমকির মুখে পড়েছে। স্টেডিয়ামটি ভেঙে ফেলা হতে পারে কারণ এর ফলে পার্শ্ববর্তী সপ্তদশ শতকে তৈরি ডাচ দুর্গের হেরিটেজ বা বিশ্ব ঐতিহ্যের মর্যাদা প্রত্যাহার করে নেওয়ার ঝুঁকি তৈরি হয়েছে।

 

সাব্বিরের জন্য এক্সট্রিম ডিসিশন নিতে হবে : পাপন

গত দুইবছর ধরে বহুবার আলোচনায় এসেছেন সাব্বির রহমান। একে তো তিনি অফফর্মে, তার উপর তার দুর্ব্যবহারের জন্য বারবার হয়েছেন বিতর্কিত। তিনি কখনো নারি কেলেঙ্কারিতে জড়িয়ে, কখনো দর্শককে পিটিয়ে আবার কখনো দর্শকে হুমকি প্রদর্শন করে তিনি আলোচনার কেন্দ্রবিন্দুতে এসে পড়েন।

এদিকে তার এমন আচরণকে মোটেও স্বাভাবিকভাবে নিচ্ছেন না বিসিবি প্রধান নাজমুল হাসান পাপন। আর তিনি এরকম অবস্থাকে ‘ খারাপ’ বলেও অভিহিত করেন। সম্প্রতি এক সংবাদ সম্মেলনে তিনি সাংবাদিকদের বলেন,

“আমরা মনে করেছিলাম, শেষ যে বিচারটি হয়েছিল, তার পর সব ঠিক হয়ে যাওয়া উচিত ছিল। কিন্তু তাতেও যদি ঠিক না হয়, তাহলে তো এক্সট্রিম ডিসিশন নিতেই হবে, উপায় নেই। তবে এই ধরণের বিশৃঙ্খলা আমি মনে করি ক্রিকেটের জন্য অত্যন্ত অত্যন্ত খারাপ।”

এদিকে গত তিন-চার বছর ধরেই বাংলাদেশ ক্রিকেটে অভূতপূর্ব সাফল্য অর্জন করে আসছে। যে কোনো দলের বিপক্ষেই বাংলাদেশ এখন কঠিন প্রতিপক্ষ। আর তাই বাংলাদেশকে নিয়ে ঘাটাঘাটিও কম হয় না। আর তাই দেশের ক্রিকেটকে নিয়ে কোনো বিতর্ক চান না তিনি। তিনি বলেন,

“যেহেতু ক্রিকেটটা বাংলাদশে ভালো জায়গায় আছে এবং বাইরেও সব জায়গায় খোঁজখবর রাখে, এটা নিয়ে বিতর্ক হোক, তা আমরা চাই না।

Related Articles

Close