আন্তর্জাতিক ক্রিকেটক্রিকেটবাংলাদেশ ক্রিকেট

এবার বাংলাদেশ সফরে শ্রীলঙ্কার দল ঘোষনা!

বাংলাদেশ সফরে এসেছে শ্রীলঙ্কা এ দল। এই দুই দলের মধ্যকার দুইটি টেস্ট ম্যাচ ড্র হয়েছে। সিরিজ নির্ধারনী ম্যাচটি সিলেটে হচ্ছে। টেস্ট ম্যাচের পরেই এবার মাঠে গড়াবে ওয়ানডে সিরিজ । সেই সিরিজকে সামনে রেখে থিসারা পেরেরাকে অধিনায়ক রেখে শক্তিশালী দল ঘোষনা করেছে শ্রীলঙ্কা দল। এক নজরে দেখে নেওয়া যাক সেই দলটিঃ

১৫ সদস্যের শ্রীলঙ্কা এ দলঃ

১) থিসারা পেরেরা – অধিনায়ক
২) উপুল থারাঙ্গা
৩) দাসুন শানাকা – সহকারী অধিনায়ক
৪) লাহিড়ু থিরিমান্নে
৫) শিহান জয়সুরিয়া
৬) আশান প্রিয়াঞ্জন
৭) সাদিরা সামারাবিক্রমা- উইকেটরক্ষক
৮) চারিথ আশালঙ্কা
৯) শাম্মু আশান
১০) মিনোদ ভানুকা – উইকেটরক্ষক
১১) মালিন্ডা পুষ্পকুমার
১২) নিশান পেরিস
১৩) শেহান মাদুশকা
১৪) আসিথা ফার্নান্ডো
১৫) ঈশুর উদানা

স্ট্যানবাইঃ

১) বিশো ফার্নান্ডো
২) চতুরঙ্গা ডি সিলভা
৩) চামিকা করুণারত্নে

 

টি-২০তে সর্বোচ্চ রানের রেকর্ড গড়লো কেনিয়া

একসময় বিশ্বকাপের সেমিফাইনালে খেলা কেনিয়া দল এখন হয়তো নিজেদের শেষটা দেখে ফেলেছে। আইসিসির ২য় বিভাগে খেলে কেনিয়া দল। সেইখানে রুয়ান্ডার বিপক্ষে টি-২০ ম্যাচে সর্বোচ্চ রানের রেকর্ড গড়েছে দলটি।

২০১৬ সালে শ্রীলংকা সফরে পাল্লেকেল্লে স্টেডিয়ামে ৩ উইকেটে ২৬৩ রান করে ইতিহাস গড়েছিল অস্ট্রেলিয়া। আন্তর্জাতিক টি-টোয়েন্টি ক্রিকেটে অসিদের গড়া সেই ইনিংসটিই দলীয় সর্বোচ্চ রানের স্কোর।

অসিদের সেই রেকর্ড ভেঙে নতুন ইতিহাস গড়েছে আইসিসির সহযোগী সদস্য দল কেনিয়া। নির্ধারিত ২০ ওভারে ২৭০ রান করে দলটি। জবাবে ব্যাট করতে নেমে ১৪৭ রানেই শেষ হয় রুয়ান্ডার ইনিংস।

অবশেষে রিয়াল ছাড়ার আসল কারণ জানালেন রোনালদো

রিয়াল মাদ্রিদে ৯ বছরের রাজত্ব শেষ করে জুভেন্টাসে পাড়ি জমালেন ক্রিশ্চিয়ানো রোনালদো। লস ব্লাঙ্কোসদের পক্ষ থেকে আনুষ্ঠানিক ঘোষণাও দেয়া হয়েছে। স্প্যানিশ ক্লাবটির সতীর্থরাও সোশ্যাল মিডিয়ায় বিদায় জানাতে শুরু করেছেন সিআর সেভেনকে। অন্যদিকে ইতালিয়ান জায়ান্টরা পর্তুগিজ মহাতারকাকে বরণ করতে শেষ প্রস্তুতি গ্রহণ করে ফেলেছে। বিদায়ী বার্তায় ঐতিহ্যবাহী দলটির সমর্থকদের কাছে খোলা চিঠি দিয়েছেন রোনালদো।

৩৩ বছর বয়সী এই ফরোয়ার্ড লিখেছেন, মাদ্রিদ শহর ও রিয়ালে কাটানো বছরগুলো সম্ভবত আমার জীবনের সবচেয়ে আনন্দের সময়। ক্লাব, সমর্থক এবং এই শহরের প্রতি ভীষণ কৃতজ্ঞ। যেভাবে তারা আমাকে ভালোবেসেছে, আমার প্রতি যে আবেগ দেখিয়েছে, ধন্যবাদ দিলেও কম হয়ে যাবে।

২০০৯ সালে যোগ দেয়ার পর রিয়ালের জার্সিতে ১৬টি শিরোপা ও ৪৫১টি গোল করেছেন পর্তুগালের অধিনায়ক। দীর্ঘদিন বিশ্বের অন্যতম সেরা দলটি পরিবর্তনের কারণটা জানিয়েছেন এই ফরোয়ার্ড।

রোনালদো বলেন, আমি মনে করেছি, জীবনের নতুন ধাপে পা রাখার সময় হয়েছে। এ কারণই ক্লাবকে বলেছিলাম আমাকে চলে যাওয়ার অনুমতি দেয়ার জন্য। সিদ্ধান্তটা কঠিন ছিল। আমি এর জন্য ক্ষমা প্রার্থী। ক্লাবের সমর্থকদের অনুরোধ করবো, দয়া করে আমাকে বোঝার চেষ্টা করুন। অসাধারণ ৯টি বছর কেটেছে এখানে। ৯টি অতুলনীয় বছর। এবছরগুলো জীবনের সবচেয়ে রোমাঞ্চকর।

সান্তিয়াগো বার্নব্যুর হয়ে ক্যারিয়ারের সেরা সময় পাড় করেছেন গেলো একযুগের অন্যতম সেরা ফুটবলার। এনিয়ে তিনি বলেন, রিয়ালে আমি কঠিন সময়ও কাটিয়েছি, কারণ আমার ওপর তাদের অনেক প্রত্যাশা ছিল। আমি এটা নিয়ে সব সময়ই সচেতন ছিলাম। এখানে অসাধারণ ফুটবল যতটা উপভোগ করেছি, তা কখনও ভুলব না। ড্রেসিংরুম ও মাঠে অসাধারণ সব সঙ্গী পেয়েছি। দুর্দান্ত সব সমর্থকের যে আবেগ সেটা সব সময় টের পেয়েছি। এবং সবাই মিলে আমরা টানা তিনটি চ্যাম্পিয়ন্স লিগ জিতেছি এবং পাঁচ বছরে চারটি ট্রফি জিতেছি।

২০০৩ সালে পর্তুগিজ ক্লাব স্পোর্টিং থেকে ম্যানচেস্টার ইউনাইটেডে যোগ দেন ১৮ বছর বয়সী রোনালদো। ১২.২৪ মিলিয়ন পাউন্ডে যোগ দিয়ে সেসময় পুরো বিশ্বকে তাক লাগিয়ে দেন। কারণ ইংলিশ ফুটবলের ইতিহাসে কোনো টিনএজ ফুটবলারকে এতো দাম দিয়ে কেনেনি কেউ।

২০০৯ সালে টানা ছয় বছর ইংলিশ প্রিমিয়ার লিগ রাজত্ব করে ৮০ মিলিয়ন পাউন্ডে লা লিগায় পাড়ি জমান এই ফরোয়ার্ড। রেড ডেভিলসদের জার্সিতে ক্যারিয়ারের প্রথমবার জিতে নেন ব্যালন ডি অ’র শিরোপা। ম্যানইউ থেকে রিয়াল মাদ্রিদে যোগ দেবার মূল্যটি ওই সময়কার বিশ্বরেকর্ড।

মাদ্রিদের ক্লাবটিকে বিদায় বেলায় এই তারকা বলেন, এখানে থেকেই ব্যক্তিগতভাবে ৪টি ব্যালন ডি অ’র ও ৩টি গোল্ডেন বুট জিতেছি। এই অসাধারণ এক ক্লাবে খেলেছি বলেই এত অর্জন আমার ক্যারিয়ারে। রিয়াল মাদ্রিদ আমার হৃদয়ে জায়গা করে নিয়েছে। আমার পরিবারের হৃদয়েও জায়গা করে নিয়েছে। আর এ কারণেই অন্য যে কোনও সময়ের চেয়েও বেশি করে বলতে চাই, ধন্যবাদ।

দলটির প্রতি কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করে রোনালদো বলেন, ক্লাব সভাপতি, বোর্ড, আমার সতীর্থ, সব কোচ, ফিজিও এবং ক্লাবের অসাধারণ সব কর্মীদেরও ধন্যবাদ জানাতে চাই। যারা ক্লান্তিহীনভাবে সবকিছু সচল রাখছেন, ছোটখাটো সব বিষয়ে নজর রাখছেন। সব সমর্থক ও স্প্যানিশ ফুটবলের প্রতি আবারও অসংখ্য ধন্যবাদ। এই নয় বছরে আমি বিশ্বের সেরা কিছু খেলোয়াড়ের বিরুদ্ধেও খেলেছি। আমি তাদের প্রতি আমার সম্মান ও শ্রদ্ধা জানাচ্ছি।

খোলা চিঠিতে পর্তুগিজ ফরোয়ার্ড বলেস, আমি অনেক লম্বা সময় নিয়ে ভেবেছি এবং এই সিদ্ধান্ত নিয়েছি যে, জীবনে নতুন কিছু শুরু করার সময় এসেছে। আমি এই জার্সি ছেড়ে যাচ্ছি। কিন্তু যেখানেই থাকি না কেন এই ক্লাব ও স্যান্তিয়াগো বার্নাব্যু আমার জীবনের অংশ হয়ে থাকবে। সবাইকে ধন্যবাদ। এই স্টেডিয়ামে ৯ বছর আগে প্রথমবার যেমন বলেছিলাম, হালা মাদ্রিদ!

মঙ্গলবার লা লিগার দলটি ছেড়ে জুভেন্টাসের পথে পা বাড়িয়েছেন এই কিংবদন্তি। ইতালিয়ান ক্লাবটির ইতিহাসে রেকর্ড গড়ে ১০৫ মিলিয়ন ইউরোর চুক্তিতে সাদা কালো শিবিরে যোগ দিচ্ছেন রোনালদো।

Related Articles

Close