ক্রিকেটবাংলাদেশ ক্রিকেট

অপারেশনের পর এখন যেমন আছেন নাসির!

হাঁটুর ইনজুরিতে ভুগছিলেন নাসির হোসেন। দেশের চিকিৎসকরা জানিয়েছিলেন হাঁটুতে অস্ত্রোপচার করাতে হবে বাংলাদেশ জাতীয় দলের এই ক্রিকেটারকে। টাইগারদের বড় ধরনের শারীরিক সমস্যার জন্য নির্ভরতার অপর নাম ডেভিড ইয়ং। আর অস্ট্রেলিয়ান এই চিকিৎসকের কাছেই সম্পন্ন হয়েছে নাসিরের অস্ত্রোপচার। গতকাল শুক্রবার স্থানীয় সময় সন্ধ্যা ৬টায় (বাংলাদেশ সময় দুপুর ২টায়) নাসিরের অস্ত্রপচার করেন ডা. ইয়ং।২৮ মে অস্ট্রেলিয়ার সিডনীর উদ্দেশ্যে ঢাকা ছেড়ে যান ২৫ বছর বয়সী এই টাইগার তারকা। অস্ত্রপচারের পর সুস্থ আছেন নাসির। বিষয়টি নিজেই জানিয়েছেন। নিজ ফেসবুকে ভক্তদের উদ্দেশ্যে হাসপাতালের বিছানায় শুয়ে ছবিসহ পোস্ট দিয়েছেন।

এতে তিনি বলেন, ‘আলহামদুলিল্লাহ্‌, আপনাদের সবার দোয়াতে অপারেশন সাকসেসফুল।’ নাসিরের পরিবারের সূত্র জানায়, সফল অস্ত্রোপচার হলেও দীর্ঘ দিনের জন্য ক্রিকেট থেকে দূরে থাকতে হবে তাকে। মাঠে ফিরতে সময় লাগবে প্রায় ৬ মাসের মতো। চলতি মৌসুমে ঢাকা প্রিমিয়ার ডিভিশন ক্রিকেটের লিগের (ডিপিডিসিএল) হয়ে খেলেন নাসির। আবাহনী লিমিটেডের অধিনায়ক হিসেবে শিরোপা লাভের পর সিরাজগঞ্জ যান। বন্ধুর বিয়েতে শখের বসে ফুটবল খেলতে নামেন নাসির। আর তাতেই ঘটে বিপত্তি। খেলার একপর্যায়ে মাঠে পড়ে গিয়ে ডান পায়ের হাঁটুতে আঘাত পান। সেখানে প্রাথমিক চিকিৎসার পর ঢাকা ফিরেই বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ডের (বিসিবি) চিকিৎসক দেবাশীষ চৌধুরীকে দেখান। তার পরামর্শ অনুযায়ী এমআরআই করলে হাঁটুতে চিড় ধরা পড়ে নাসিরের। বিসিবির সহায়তায়ই নাসিরকে অস্ট্রেলিয়ায় পাঠানো হয়।

 

জানেন এই জাহাজে করে কোন ৪টি দেশ প্রথম বিশ্বকাপ খেলতে গিয়েছিলো, পুড়োটা পড়ুন…

 

প্রথম বিশ্বকাপ হয়েছিল দক্ষিণ আমেরিকার উরুগুয়ের রাজধানী মন্টিভিডিওতে। সেবার কোন কোয়ালিফাইং পর্ব ছিল না, অনেকগুলো ইউরোপিয়ান দেশকে সরাসরি খেলতে আমন্ত্রণ জানিয়েছিল ফিফা।

কিন্তু জাহাজে করে আটলান্টিক পাড়ি দিয়ে মন্টিভিডিও যেতে সে যুগে সময় লাগতো দু’সপ্তাহ।

তাই ফুটবল বিশ্বকাপ খেলতে এত দূর যেতে রাজিই হয় নি অনেক ইউরোপিয়ান দেশ। শেষ পর্যন্ত মাত্র ৪টি ইউরোপীয় দেশ গিয়েছিল – তারা হলো: বেলজিয়াম, রোমানিয়া, যুগোস্লাভিয়া আর ফ্রান্স।

ব্যবস্থা হয়েছিল, একই জাহাজে চেপে একাধিক ইউরোপিয়ান দেশের খেলোয়াড়রা মন্টিভিডিও যাবেন।

রোমানিয়ার দলটি ‘এসএস কন্তে ভার্দে’ নামের জাহাজে উঠেছিল ইতালির জেনোয়া বন্দর থেকে । ১৯৩০ সালের ২১শে জুন ফ্রান্সের ফুটবল দল জাহাজে উঠলো ভিয়েফ্রাঁসে-সু -মে বন্দর থেকে। শুধু তাই নয় – সে জাহাজে আরো উঠলেন, ফিফার প্রেসিডেন্ট জুল রিমে স্বয়ং, নেয়া হলো প্রথম বিশ্বকাপ ট্রফিটি, এবং তিনজন রেফারিকে। পথে বার্সেলোনা থেকে সেই জাহাজে উঠলো বেলজিয়াম দল।

পথে আটলান্টিক পাড়ি দেবার পর রিও ডি জেনেইরো থেকে ব্রাজিল দলটিও উঠলো একই জাহাজে।

চোদ্দ দিনের সাগর ভ্রমণ শেষে ৪ঠা জুলাই এরা সবাই মন্টিভিডিও পৌঁছালেন।

যুগোস্লাভিয়া দল মন্টিভিডিওতে গেল ফ্লোরিডা নামে আরেকটি জাহাজে করে -তাদের জাহাজ ছেড়েছিল মার্সেই বন্দরে থেকে।

এর সাথে তুলনা করুন এবারের বিশ্বকাপের – মস্কো থেকে সাড়ে আট হাজার মাইল দূরের অস্ট্রেলিয়া বা আর্জেন্টিনা থেকে বিশ্বকাপ দলের বিমানে করে রাশিয়া পৌঁছতে সময় লাগবে মাত্র ১৮-১৯ ঘন্টা।

Related Articles

Close