আইপিএলক্রিকেট

এবারের আইপিএলে সব থেকে খারাপ পারফর্ম করেছেন এই তিন বিদেশি

নিলামে যাঁদের নেওয়ার জন্য ওত পেতে রেখেছিলেন ফ্রাঞ্চাইজি কর্তারা, এখন তাঁদের ছেড়ে দে মা কেঁদে বাঁচি অবস্থা। আইপিএলে প্রতিটি স্কোয়াডে চারজন করে বিদেশি রাখার নিয়ম। এই চারজন বিদেশির পারফরম্যান্সের উপর অনেক ক্ষেত্রেই নির্ভর করে টিমের জেতা-হারা। প্রচুর পরিমাণ অর্থ নেওয়ার পরও অনেক সময় সেই বিদেশি ক্রিকেটাররাই পারফর্ম করতে পারেন না।

এমন তিনজন ক্রিকেটার যাঁরা এবারের আইপিএলে প্রচুর সুযোগ পেয়েছেন। কিন্তু নিজেদের প্রমাণ করতে পারেননি। চলতি আইপিএলে চরম ব্যর্থ এমন তিনজন ক্রিকেটারকে দেখে নেওয়া যাক-

গ্লেন ম্যাক্সওয়েল- ভারতে তাঁর পারফরম্যান্স একেবারে খারাপ। এদেশে সর্বসাকুল্যে তাঁর ব্যাটিং গড় ১৯.৫৭। এবার প্রথম পাঁচটি ইনিংসে ম্যাক্সওয়েলের গড় ছিল মাত্র ১৯। এবং ছ’ওভার বল করে পেয়েছিলেন মাত্র একটা উইকেট। টানা পাঁচ ম্যাচে খারাপ পারফর্ম করেও তিনি দলে ছিলেন। এদিকে, কলিন মুনরো মাত্র দু’টো ম্যাচে খারাপ খেলেই দলের বাইরে চলে যান। মুনরোর ব্যাটিং গড় ছিল ৩৭। যেখানে ম্যাক্সওয়েলের গড় শেষ পর্যন্ত ছিল মাত্র ২৫।

অ্যারন ফিঞ্চ- টি-২০ ক্রিকেটে সর্বোচ্চ রান (১৫৬) করার রেকর্ড তাঁর পকেটে। এবার আইপিএল নিলামে পাঞ্জাব তাঁকে নিয়েছিল ৬.২ কোটি টাকার বিনিময়ে। মিডল অর্ডারে নেমে প্রথম ছ’ম্যাচে ফিঞ্চের গড় মাত্র ছয়। মাঝে তাঁকে বসিয়ে রাখার সিদ্ধান্ত নিয়েছিল পাঞ্জাব ম্যানেজমেন্ট। ফিরে এসে তিন ম্যাচে ফিঞ্চের গড় মাত্র ৩৫.৩৩।

বেন লাফলিন- বাংলাদেশ প্রিমিয়র লিগে বোলার হিসাবে দারুন পারফর্ম করেছিলেন। রাজস্থান ম্যানেজমেন্ট তাঁকে ব্যাক-আপ বোলার হিসাবে রেখেছিল। কিন্তু জোফরা আর্চার চোট পাওয়ার পরই লাফলিনের শিঁকে ছেড়ে। প্রথম তিন ম্যাচে তাঁর ইকোনমি রেট ছিল ১০.৮৫। পেয়েছিলেন তিন উইকেট। এর পর জোফরা চোট সারিয়ে ফিরে আসার পরও দলে সুযোগ পেতে থাকেন লাফলিন। তাঁর বোলিং গড় ছিল ৯.৩৩। তার পর দল থেকে বাদ পড়েন তিনি। জোফরা ফিরে আসার পর দু’ম্যাচে ছয় উইকেট পান।

 

আগামীকালকেই কোচ পাচ্ছে বাংলাদেশ!

 

আগামীকালকেই বাংলাদেশে আসছেন বাংলাদেশ দলের উপদেষ্টা গ্যারি কারেস্টেন। ব্যাঙ্গালুরুর কোচ গ্যারি কারেস্টেনের আইপিএল শেষ হয়েছে গতকালকেই। গতকালকেই আইপিএল থেকে বিদায় নেয় গ্যারি কারেস্টেনের দপ্ল ব্যাঙ্গালুরু।

আর কালকেই ঢাকায় আসছেন গ্যারি। ঢাকায় এসেই বিসিবি সভাপতির সাথে দেখা করবেন তিনি। লক্ষ্য থাকবে কোচের ব্যাপারে আলাপ করা।

বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ডের সভাপতি নাজমুল হাসান পাপন বলেন, টেস্টের জন্য কেউ কোচ হতে আগ্রহী নয়। সবাই টি-টিয়েন্টি ও ওয়ানডের কোচ হতে আগ্রহী। তবে, আমরা পূর্ণমেয়াদী কোচ নিয়োগ দিতে আগ্রহী।

হেড কোচ নিয়োগে মস্তিস্কের সর্বোচ্চটা দিচ্ছে বিসিবি। তাই হাথুরুসিংহের বিকল্প দক্ষ্য কোচ পেতে পরামর্শক হিসেবে রাখা হয়েছে গ্যারি কারস্টেনকে। অন্তরালের খবর হলো। সন্ধান মিলেছে টাইগারদের হেড কোচের। তবে, সোমবার গ্যারি কারস্টেনের সাথে বৈঠকের পর নেয়া হবে চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত।

তিতি আরও বলেন, গ্যারি কারস্টেনের আসবেন। সেই সময়ে একটা প্রেজেন্টেশন দিবেন ও রিপোর্ট দিবেন। সেটা আমাদের পছন্দ হলে আমরা সিন্দান্ত নিবো। আর সেই সিদ্ধান্ত অনুযায়ী হয়তো আগামীকালকেই নতুন কোচ পেতে পারে বিসিবি।

Related Articles

Close