আইপিএলক্রিকেট

রাইডুর সেঞ্চুরিতে চেন্নাইয়ের কাছে আবার হারল সাকিবরা

চেন্নাই সুপার কিংসের সঙ্গে এবারও পেরে উঠল না সানরাইজার্স হায়দরাবাদ। মাঝে টানা ছয় জয়ের পর আবার মহেন্দ্র সিং ধোনিদের কাছে হেরে গেছে দলটি। চেন্নাইয়ের জয়ে সবচেয়ে বড় অবদান ক্যারিয়ারের প্রথম সেঞ্চুরি পাওয়া অম্বাতি রাইডুর।
প্রথম দেখায় ৪ রানে জেতা চেন্নাই এবার সাকিব আল হাসানদের হারিয়েছে ৮ উইকেটে। ১৮০ রানের লক্ষ্য ৬ বল বাকি থাকতে পেরিয়ে যায় চেন্নাই।

শেষের দিকে ব্যাটিংয়ে নেমে তেমন কিছু করতে পারেননি সাকিব। ৬ বল খেলে একটি চারে অপরাজিত থাকেন ৮ রানে।

বোলিংয়ে মেলেনি সাফল্য। বাঁহাতি স্পিনে চার ওভারে ৪১ রান দিয়ে উইকেটশূন্য। চলতি আসরে এই প্রথম ৪০ বা তার বেশি রান দিলেন তিনি।

পুনের মহারাষ্ট্র ক্রিকেট স্টেডিয়ামে রোববার টস হেরে ব্যাট করতে নেমে শুরুতেই অ্যালেক্স হেলসকে হারায় হায়দরাবাদ।

পরপর দুই বলে ফিরে যাওয়ার আগে দ্বিতীয় উইকেটে ১২৩ রানের দারুণ এক জুটি গড়েন শিখর ধাওয়ান ও কেন উইলিয়ামসন। বাঁহাতি ওপেনার ধাওয়ান ফিরেন ৪৯ বলে ১০ চার আর তিন ছক্কায় ৭৯ রান করে। অধিনায়ক উইলিয়ামসন ৩৯ বলে করেন ৫১ রান।

শেষের দিকে দীপক হুদার অপরাজিত ২১ রানে পৌনে দুইশ রানে যায় হায়দরাবাদের সংগ্রহ।

চেন্নাইয়ের শার্দুল ঠাকুর ২ উইকেট নেন ৩২ রানে। ৪ ওভারে মাত্র ১৬ রানে ১ উইকেট নেন দীপক চাহার।

রান তাড়ায় চেন্নাইকে পথ দেখায় শুরুর জুটি। রাইডুর সঙ্গে শেন ওয়াটসন ১৩.৩ ওভারে গড়েন ১৩৪ রানের বিস্ফোরক এক উদ্বোধনী জুটি। ৩৫ বলে ৫৭ রান করে ওয়াটসন রান আউট হলে প্রথম সাফল্য পায় হায়দরাবাদ।

পরের সাফল্যের জন্য বেশিক্ষণ অপেক্ষা করতে হয়নি। ২ রান করে বিদায় নেন সুরেশ রায়না। ধোনিকে নিয়ে বাকিটা সহজেই সারেন রাইডু। আগের সেরা ৮২ ছাড়িয়ে এই ওপেনার অপরাজিত থাকেন ১০০ রানে। তার ৬২ বলের ইনিংস গড়া ৭টি করে ছক্কা-চারে।

এই জয়ে ১১ ম্যাচে ১৬ পয়েন্ট নিয়ে দুই নম্বরেই রয়েছে চেন্নাই। সমান ম্যাচে ১৮ পয়েন্ট নিয়ে শীর্ষে হায়দরাবাদ।

 

ক্রিকেটারদের মানসিকতায় বড় বদল দেখছেন বাংলাদেশের ট্রেনার

‘শুরুতে অনেক কষ্ট করতে হয়েছে’-মারিও ভিল্লাভারায়ন যখন বলছেন, তার চোখেমুখে তৃপ্তির আভা। বাংলাদেশ দলের এই ট্রেনার বলছিলেন ফিটনেস নিয়ে বাংলাদেশের ক্রিকেটারদের মানসিকতা বদলাতে কতটা পরিশ্রম করতে হয়েছে। এখন সেই পরিশ্রমের ফল মিলছে, ভিল্লাভারায়ন যেটিকে মনে করছেন বড় পাওয়া।
ফিটনেস টেস্ট দিয়ে রোববার থেকে শুরু হয়েছে বাংলাদেশ দলের আফগানিস্তানের বিপক্ষে টি-টোয়েন্টি সিরিজ ও ওয়েস্ট ইন্ডিজ সফরের প্রস্তুতি। শ্রীলঙ্কায় ত্রিদেশীয় সিরিজের পর ঘরোয়া ক্রিকেট খেলেছেন ক্রিকেটারদের অনেকে। এরপর ছিল ছুটি। নতুন অভিযান শুরুর আগে কার ফিটনেস কোন অবস্থায়, এ দিন সেটি পরখ করলেন ভিল্লাভারায়ন।

ছুটির পর ক্রিকেটারদের ফিটনেসে মোটামুটি সন্তুষ্ট ট্রেনার। তবে তার সবচেয়ে বড় তৃপ্তি ফিটনেস নিয়ে ক্রিকেটারদের দৃষ্টিভঙ্গি বদলানোয়। এক সময় ট্রেনার-ফিজিওর করে দেওয়া রুটিন মানতে অনেক আপত্তি দেখা যেত অনেক ক্রিকেটারের। রুটিনের বাইরে কিছু তো করা হতোই না। এখন সেই ছবি বদলে গেছে অনেকটাই।

এবারই যেমন, এই ছুটির সময়েও শের-ই-বাংলা স্টেডিয়ামের জিমে নিয়মিত ফিটনেস ট্রেনিং করতে দেখা গেছে ক্রিকেটারদের অনেককে। ফিটনেস নিয়ে খুব সচেতন নন বলে একসময় যার বিরুদ্ধে ছিল অভিযোগ, সেই তামিম ইকবাল এই পুরো সময়টাতেই ডায়েট করে, জিমে ঘাম ঝরিয়ে কাজ করেছেন ফিটনেস আরও ধারাল করতে।

ভিল্লাভারায়ন এসবকেই মনে করছেন বড় অর্জন। চার বছর আগে ট্রেনারের দায়িত্ব নেওয়ার সময় যেমন মানসিকতা দেখেছিলেন ক্রিকেটারদের, এখন সেখানে পরিবর্তন দেখতে পান অনেক।

“বিশাল পরিবর্তন হয়েছে, অনেক বড় পরিবর্তন। আজকে সকালেই আমি ছেলেদের বলছিলাম, চার বছর হয়ে গেল। ২০১৪ সালের মে মাসে এসেছিলাম। দারুণ চারটি বছর কাটল। অনেক বদল এসেছে। এবারই যেমন কলম্বোতে ছুটি কাটানোর সময় আমি জানতে পারলাম, তামিম নিজের তাগিদেই ফিটনেস ট্রেনিং করছে। আরও অনেকেই নিজে থেকে করছে। এসব আমাকে দারুণ তৃপ্তি দিয়েছে।

“আমি যখন এখানে এসেছিলাম, ঠিক এমনটিই চেয়েছিলাম। চেয়েছিলাম যে মূল দায়িত্বটি ক্রিকেটারদেরই নিতে হবে এবং নিজের তাগিদে ফিটনেস ট্রেনিংয়ের অভ্যাস গড়তে হবে। সেই কারণেই বলছি, ছেলেদের মানসিকতায় অনেক উন্নতি হয়েছে।

মানসিকতা বদলানোর লড়াইটি সহজ ছিল না। সাবেক এই শ্রীলঙ্কান পেসার জানালেন, অনেক পরিশ্রম ও প্রচেষ্টায় এসেছে আজকের এই সুদিন।

“শুরুতে অনেক কষ্ট করতে হয়েছে আমাকে। ওদেরকে বোঝাতে হয়েছে কেন এটা ভীষণ জরুরি। সেই পরিশ্রমের ফল মিলতে শুরু করেছে। সবাই এখন অনেক সচেতন। আমি তো আজীবন এখানে থাকব না। তবে আশা করি, আমি যাওয়ার পরও ওরা এমনই থাকবে।”

গত কিছু দিনে বাংলাদেশের ক্রিকেটে তুমুল আলোচনা ছিল গা গরমের ফুটবল খেলতে গিয়ে ইনজুরি। ট্রেনার হিসেবে ট্রেনিংয়ের পদ্ধতিগুলো ঠিক করেন ভিল্লাভারায়ন। ফুটবলে ঝুঁকিটা তিনি অস্বীকার করলেন না। তবে নিজের কাজটা ঠিকভাবে করে আসছেন বলে দাবি জানিয়ে সতর্ক হতে বললেন ক্রিকেটারদেরই।
“আমার চার বছরের মেয়াদে এবারই প্রথম মনে হয় ফুটবলে ইনজুরি হলো। আর হয়নি। গত দক্ষিণ আফ্রিকা সফরে মুস্তাফিজ অ্যাঙ্কেলে চোট পেল, তবে সেটা সরাসরি ফুটবল ছিল না। হাঁটার সময় মচকে যায়, খেলায় নয়।”

“যখন আমি থাকি, তখন আমি একটি গাইডলাইন ঠিক করে দেই যে এভাবে খেলতে হবে। যেন বিশৃঙ্খলভাবে না খেলে। এজন্যই জাতীয় দলে খেলার সময় ফুটবলে বড় কোনো ইনজুরি গত চার বছরে হয়নি। কিন্তু ঘরোয়া ক্রিকেটে বা অন্য জায়গায় তো আমি দেখভাল করতে পারব না। অবশ্যই এখানে ঝুঁকি আছে। দায়িত্বটি ক্রিকেটারদের নিজেদেরই নিতে হবে। নিজের ভালো বুঝতে হবে।

Related Articles

Close