আন্তর্জাতিক ফুটবলফুটবল

ফুটবলের কাছে বিশ্বকাপ পাওনা রোনালদোরও

এটাই রোনালদোর শেষ সুযোগ। আগামী বছর ৩৩ ছোঁবেন ক্রিস্টিয়ানো রোনালদো। তাঁর কাতার বিশ্বকাপে খেলার সম্ভাবনা তাই খুবই কম। ক্যারিয়ারজুড়ে যাঁর সঙ্গে প্রতিদ্বন্দ্বিতা হয়েছে, সেই লিওনেল মেসিরও হয়তো শেষ সুযোগ এবারের বিশ্বকাপ। এ প্রজন্মের সেরা দুই খেলোয়াড়ের বিশ্বকাপ জেতার সম্ভাব্য সেরা সুযোগ তাই ২০১৮ সালে রাশিয়াতে। আর্জেন্টাইন কোচ হোর্হে সাম্পাওলি দাবি করছেন, ফুটবলের কাছেই মেসির পাওনা বিশ্বকাপ। কিন্তু রোনালদোরও কি তা নয়?

‘ফুটবলের কাছে রোনালদোর একটি বিশ্বকাপ পাওনা’—স্প্যানিশ পত্রিকা মার্কা এমন এক শিরোনাম দিয়েই একটি মতামত প্রকাশ করেছে। লেখক হুয়ানমা রদ্রিগেজের চোখে এটাই পর্তুগিজ অধিনায়কের শেষ সুযোগ। তিনি প্রথমেই স্বীকার করে নিয়েছেন, রোনালদোর পক্ষে অসম্ভব কিছু নয়, তাই ২০২২ বিশ্বকাপেও রোনালদোকে দেখার সম্ভাবনা উড়িয়ে দিচ্ছেন না। কিন্তু বাস্তবতা হলো, সম্ভবত ২০১৮-ই হবে রোনালদোর শেষ বিশ্বকাপ। এটা তো তর্কাতীতভাবেই সত্যি, সর্বকালের সেরা চারজন ফুটবলারের একজন রোনালদো। বিশ্বকাপ জিতে ক্যারিয়ার শেষ করাটাই তো তাঁর সঙ্গে মানায়!

রদ্রিগেজের দাবি, সংবাদমাধ্যম যেভাবেই দেখাতে চাক না কেন, রোনালদোর আগ্রহের কেন্দ্রবিন্দুতে শুধুই ফুটবল। একজন আদর্শ খেলোয়াড়, যিনি প্রতিটি মুহূর্ত আরেকটু ভালো খেলার জন্য প্রস্তুতিতে ব্যয় করেন। যা অর্জন করেছেন তাতেই সন্তুষ্ট হন না। যদিও রোনালদো কোটি মানুষের আদর্শ এবং বিশ্বসেরা ক্লাবে খেলেন। কিন্তু তাঁর জাতীয় দল পর্তুগাল কিন্তু গড়পড়তা। সে দল নিয়েই ২০১৬-এর ইউরো জিতেছেন রোনালদো।

বর্তমানের অন্য সব ফুটবলারের চেয়ে আলাদা রোনালদো। বিশের অন্য সব তারকাই জাতীয় দলে যোগ্য সমর্থন পান। কিন্তু পর্তুগাল দলে রোনালদো সম্পূর্ণ একা। যেখানে অন্য তারকাদের দেশে নিয়মিত সমালোচনার শিকার হতে হয়, রোনালদোকে নিয়ে পর্তুগাল মেতে থাকে। তাঁর ছন্দে পুরো দল ছোটে। এই দল নিয়েই যদি বিশ্বকাপ জেতেন, তবে ফুটবলে রোনালদোর নামটা লেখা থাকবে অনন্য এক উদাহরণ হয়ে। রোনালদোর কাছ এই বিষয়ে ফুটবলের দেনা থাকবেই। ফুটবলের উচিত এই দেনা খুব দ্রুত পরিশোধ করে দেওয়া! সূত্র: মার্কা।

Tags
Show More

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Close