ক্রিকেটবিপিএল

মাশরাফিকে প্রশ্ন করা হলে যেন কিছুটা অপ্রস্তুত হয়ে পড়েন-তারপর যা বললেন মাশরাফি

বাংলাদেশ প্রিমিয়ার লিগের (বিপিএল) সপ্তম ম্যাচে রংপুর রাইডার্সের অধিনায়ক মাশরাফি বিন মুর্তজার সঙ্গে চিটাগং ভাইকিংসের পেসার শুভাশিষ রায়ের কথা কাটাকাটি হয়। যে ঘটনায় মাশরাফি ও শুভাশিস রায়কে সতর্ক করা হয়েছে। আজ ম্যাচ রেফারি নিয়ামুর রশীদ রাহুল বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

নিয়ামুর রশীদ বলেন, ‘দুই খেলোয়াড় নিজেদের ভুল স্বীকার করেছেন। ম্যাচ শেষে দুই খেলোয়াড়কে ডেকে সতর্ক করা হয়েছে। যাকে বলা হয় সফট ওয়ার্নিং। ভুল স্বীকার করে নেওয়ায় তাদের বিরুদ্ধে কোনো অ্যাকশন নেওয়া হচ্ছে না কিংবা ডিমেরিট পয়েন্ট দেওয়া হচ্ছে না। মাঠে যে ঘটনা ঘটেছে তাতে দু’জনেরই অপরাধ ছিল। মাশরাফির মতো সিনিয়র ক্রিকেটারকে নিয়ে বলার কিছু নেই। তাকে বোঝানোরও কিছু নেই। পূর্বে শৃঙ্খলা-ভঙ্গের কোনো রেকর্ড নেই শুভাশিষের বিরুদ্ধেও।’

সে দিন সিলেট আন্তর্জাতিক ক্রিকেট স্টেডিয়ামে ১৬৭ রানের লক্ষ্যে ব্যাট করতে নামে রংপুর রাইডার্স। শুভাশিসের করা ১৭তম ওভারে ইয়র্কার ডিফেন্স করেন মাশরাফি। নিজের বলে নিজেই ফিল্ডিং করে স্ট্রাইক প্রান্তে বল ছুঁড়তে উদ্যত হন শুভাশিষ। এ সময় মাশরাফি তাকে বলেন, ‘বোলিং মার্কে ফিরে যা।’

মাশরাফির এমন কথা শুনেই তেড়ে যান শুভাশিষ। হতভম্ব হয়ে যান ম্যাশ। প্রথমে তানভির হায়দার, পরে জিম্বাবুইয়ান ক্রিকেটার সিকান্দার রাজাও এসে শুভাশিষকে নিভৃত করার চেষ্টা করেন। মাশরাফির যেন বিশ্বাসই হচ্ছিল না। ম্যাচ শেষে অবশ্য জাতীয় দলের জুনিয়র সদস্যকে আগলে রাখার চেষ্টা করেন বাংলাদেশের ওয়ানডে দলের অধিনায়ক।

মাঠের ঘটনার বিষয়ে মাশরাফিকে প্রশ্ন করা হলে যেন কিছুটা অপ্রস্তুত হয়ে পড়েন তিনি। বলেন, ‘ওটা সিরিয়াস কিছু না। উত্তেজনার মুহূর্তে এটা অনেক সময় হয়। আমারই ‘সরি’ বলা উচিত। ওর জায়গা থেকে আমি মনে করি ঠিক আছে। কারণ সেও জিততে চাইছিল আমিও জিততে চেয়েছিলাম। আমি হয়তো ওখানে আরেকটু শান্ত থাকতে পারতাম।’

Show More

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Close