আন্তর্জাতিক ক্রিকেটক্রিকেট

টেস্টে টস তুলে দেয়ার কথা ভাবছে আইসিসি

টেস্ট, ওয়ানডে, টি-টোয়েন্টি সব ফরম্যাটেই ম্যাচ শুরুর আগে টস অনুষ্ঠিত হয়ে থাকে। টসের মাধ্যমেই নির্ধারিত হয় কোন দল প্রথমে ব্যাট করবে কিংবা প্রথমে বল করবে। তবে, টেস্ট ক্রিকেটে টস প্রথা উঠিয়ে দেয়ার কথা ভাবছে ইন্টারন্যাশনাল ক্রিকেট কাউন্সিল (আইসিসি)। এ বিষয়ে আলোচনা করতে চলতি মাসের শেষের দিকে মুম্বাইয়ে বৈঠকে বসবে আইসিসির ক্রিকেট কমিটি।

১৯৭৭ সালে মেলবোর্ন ক্রিকেট গ্রাউন্ডে অনুষ্ঠিত হয় ইতিহাসের প্রথম টেস্ট। এই ম্যাচে স্বাগতিক অস্ট্রেলিয়ার প্রতিপক্ষ ছিল ইংল্যান্ড। সেই ম্যাচ থেকেই টস প্রথা চালু রয়েছে। দেখা যায় টসের কারণে অনেক সময় স্বাগতিক দেশই বেশি সুবিধা পেয়ে থাকে। স্বাগতিকদের আগে থেকেই ধারণা থাকে যে, তারা আগে ব্যাট করলে সুবিধা পাবে না আগে বল করলে সুবিধা পাবে। তাই টসে জিতলে তারা সেভাবেই সিদ্ধান্ত নেয়।

এখন প্রশ্ন উঠতে পারে যে, তাহলে টস প্রথা উঠিয়ে দিলে কারা আগে ব্যাট করবে বা আগে বল করবে। টস প্রথা উঠিয়ে দিলে সফরকারী দলই সিদ্ধান্ত নিবে তারা প্রথমে ব্যাট করবে না বল করবে। আগামী বছর থেকেই এটি কার্যকর করার কথা ভাবছে আইসিসি।

 

ইংল্যান্ড বিশ্বকাপের পরই টেস্ট চ্যাম্পিয়নশিপ!

 

দুনিয়া বদলাচ্ছে, পৃথিবী হচ্ছে দ্রুত থেকে দ্রুততর। ক্রিকেটটা এগোচ্ছে সেভাবেই, টি-টোয়েন্টির রংটাই বেশি টানছে দর্শকদের। এমতাবস্থায় টেস্ট ক্রিকেটকে অস্তিত্ব হারানোর হাত থেকে রক্ষা করতে আইসিসি হাতে নিচ্ছে বেশ কয়েকটি পরিকল্পনা। যার মধ্যে একটি বিশ্ব টেস্ট চ্যাম্পিয়নশিপ।

আপাতত ক্রিকেটের সর্বোচ্চ সংস্থাটি ইংল্যান্ড বিশ্বকাপ পরবর্তী সময়কেই বেছে নিয়েছে টেস্ট চ্যাম্পিয়নশিপ আয়োজনের জন্য। তবে চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত জানতে অপেক্ষা করতে হবে আরো কয়েকদিন। অনিল কুম্বলের সভাপতিত্বে মুম্বাইয়ে ২৮ ও ২৯ মে এক বৈঠকে বসবে আইসিসির ক্রিকেট কমিটি। এরপর তারাই জানাবে টেস্ট চ্যাম্পিয়নশিপের সময়সূচি।

শুরুর সময়টা না জানালেও আইসিসি জানিয়েছে টুর্নামেন্ট শেষের সময়। ২০১৯ সালে শুরু হয়ে ২০২১ সালের ১০-১৪ জুন মাঠে গড়াবে টেস্ট চ্যাম্পিয়নশিপের ফাইনাল।

নিয়মানুযায়ী, আগের দুই বছর মিলিয়ে বর্তমান টেস্ট র‍্যাংকিংয়ের নয়টি দেশ (বাংলাদেশসহ) মোট ২৭টি দ্বিপক্ষীয় সিরিজে অংশ নেবে। সেখান থেকে সবচেয়ে বেশি পয়েন্ট পাওয়া শীর্ষ দুই দল অংশ নেবে ফাইনালে। যদি ফাইনাল হয়ে যায় ড্র বা টাই তবে শীর্ষে থাকা দল ঘোষিত হবে চ্যাম্পিয়ন হিসেবে।

দিবারাত্রির টেস্ট নিয়েও আইসিসি চালু করতে যাচ্ছে নতুন নিয়ম। কোনো সিরিজে যদি স্বাগতিকরা দিবা-রাত্রি টেস্ট আয়োজন করতে চায় তবে সফরকারী দল বাধ্য থাকবে সেই ম্যাচে অংশ নিতে। যদিও এমনটা হলে দিবা-রাত্রির একটি প্রস্তুতি ম্যাচও খেলতে দিতে হবে অতিথিদের। একটির বেশি গোলাপি বলের টেস্ট আয়োজনের জন্য অবশ্য সফরকারীদের অনুমতি লাগবে।

এ ছাড়া টস, পয়েন্ট পদ্ধতি, উইকেটের মানদণ্ড এবং বল ইস্যুতেও নতুন কিছু পদক্ষেপ নিতে যাচ্ছে আইসিসি। তবে এসব সিদ্ধান্ত অনুমোদন হচ্ছে না এখনই। জুনে আয়ারল্যান্ডের রাজধানী ডাবলিনে আইসিসির নির্বাহী সভা শেষে কার্যকর হবে প্রস্তাবগুলো।

Show More

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Close