আইপিএলক্রিকেট

এবার রোজা রেখেই আইপিএল খেলতে হবে সাকিবকে

আইপিএল খেলতে ভারতে আছেন সাকিব আল হাসান এবং মোস্তাফিজুর রহমান। মোস্তাফিজ দলে জায়গা না পেলেও সাকিব ঠিকেই জায়গা পাচ্ছেন আইপিএল দলে। সামনেই রোজা, আর প্লে অফের সকল ম্যাচেই হবে দিনে।

তাই সেই হিসেবে ফ্রোজা রেখেই সবগুলো ম্যাচ খেলতে হবে সাকিবকে। এই দীর্ঘ সময় রোজা রাখার পর খেলায় ক্লান্তি আসতেই পারে।তবে সেটি খুব একটা কষ্টের হবে বলে না। কারণ এর আগেও অনেক মুসলিম ক্রিকেটার রোজা রেখেই খেলা করেছেন। তাই সেদিক দিয়ে সাকিবকে রোজা রেখে খেলা করতে হবে না।রোজা রাখার পর খেলা করতে হবে।এখন সাকিব কি করবেন সাকিবই ভালো জানেন?

উল্লেখ্য, সাকিবদের গ্রুপ পর্বের পরের ম্যাচ ১৭ মে বেঙ্গালুরের বিপক্ষে।এরপর ১৯ মে কলকাতার বিপক্ষে। এরপরে প্লে অফ খেলবে সাকিবরা।

 

১৮ বছরে বাংলাদেশের টেস্টের ফুল পরিসংখ্যান

বাংলাদেশ দল টেস্ট স্ট্যাটাস পায় ২০০০ সালের ১০ই নভেম্বর। এই ১০বছরের টেস্টে বাংলাদেশ দল যেমইন অনেক কিছু পেয়েছে। তেমনিভাবে আছে ব্যাপক হারের রেকর্ডও। এক নজরে দেখেনিন বাংলাদেশ দলের টেস্টের পরিসংখ্যানঃ

দলীয় রেকর্ডঃ

২০০০ সাল থেকে ২০১৮ সাল পর্যন্ত বাংলাদেশ টেস্ট খেলে ১০৬ টি ।
** জয় ১০
** পরাজয় ৮০
** ড্র ১৬
অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে ১ টি, ইংল্যান্ড এর বিপক্ষে ১ টি, শ্রীলংকার বিপক্ষে ১ টি , ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে ২ টি, জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে ৫ ম্যাচ জয়লাভ করে।
পাকিস্তান, নিউজিল্যান্ড, ইন্ডিয়া, দঃ-আফ্রিকা সাথে কোন জয় নাই তবে ড্র আছে এদের বিপক্ষে।
২০০০ সাল থেকে ২০১৮ সাল পর্যন্ত ৫৪ টা টেস্ট সিরিজ খেলেছে বাংলাদেশ ।যা মাঝে
** ৭ সিরিজ ড্র।
** ৩ টা সিরিজ জয় লাভ করে । ২টি জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে, ১ টা ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে ২০০৯ সালে জয়লাভ করে । প্রথম সিরিজ জয় লাভ করে ২০০৫ সালে জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে । প্রথম ম্যাচ ও জয় লাভ করে ২০০৫ সালে জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে ।
** বাংলাদেশের সর্বোচ্চ দলীয় রান ৬৩৮ । গল টেস্টে শ্রীলংকার বিপক্ষে ২০১৩ সাল ।
** বাংলাদেশের সর্বনিম্ন দলীয় রান ৬২ । কলম্বো টেস্টে শ্রীলংকার বিপক্ষে ২০০৭ সাল ।
** টেস্টে বাংলাদেশের সব চাইতে বড় জয় ২২৬ রান। প্রতিপক্ষ জিম্বাবুয়ে , ২০০৫ সাল। উইকেটের দিক থেকে ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে ৪ উইকেট জয় ২০০৯ সাল ।
** সর্বনিম্ন জয় ২০ রান। প্রতিপক্ষ অস্ট্রেলিয়া ২০১৭ সাল।
উইকেটের দিক থেকে ৩ উইকেটে জয় জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে, ২০১৪ সাল।

ব্যক্তিগত রেকর্ডঃ ব্যাটিং ।

** টেস্টে সব চাইতে বেশি রান তামিম ইকবাল এর ৩৯৮৫ ।
** টেস্টে ব্যাক্তিগত সর্বোচ্চ রান সাকিব আল হাসান এর ২১৭। নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষে ২০১৭ সালে ।
** সব চাইতে বেশি গড় মমিনুল হক সৌরভের ৪৬.৮২।
** সব চাইতে বেশি সেঞ্চুরি ৮ টি, তামিম ইকবালের।
** সব চাইতে বেশি স্ট্রাইক-রেট মাশরাফি বিন মোর্তুজার ৬৭.২০ । ক্যারিয়ার রান ৩৬ ম্যাচে ৭৯৭।
** সব চাইতে বেশি অর্ধশত রান তামিম ইকবালের ২৫ টা।
** সব চাইতে বেশি ডাক(আফ্রিদি) মোঃ আশরাফুলের ৬১ টি ম্যাচে ১৬ টি ডাক।
** এক সিরিজে সব চাইতে বেশি রান হাবিবুল বাশার সুমনের ৩৭৯। ৩ ম্যাচে প্রতিপক্ষ জিম্বাবুয়ে ২০০৩ সালে

ব্যক্তিগত রেকর্ডঃ বোলিং

** সব চাইতে বেশি উইকেট সাকিব আল হাসানের। ৫১ ম্যাচে ৮৬ ইনিংসে ১৮৮ উইকেট ।
** সেরা বোলিং ফিগার ১৬.৫-৭-৩৯-৮ । তাইজুল ইসলাম । প্রতিপক্ষ জিম্বাবুয়ে ২০১৪ সাল, ঢাকা ।
** এক টেস্টে সব চাইতে বেশি উইকেট মেহেদী হাসান মিরাজ ৪৯.৩-৪-১৫৯-১২ প্রতিপক্ষ ইংল্যান্ড , ২০১৬ সাল। ঢাকা।
** সর্বনিম্ন ১০ ম্যাচ খেলে সব চাইতে ভাল বোলিং গড় মোস্তাফিজের ১০ ম্যাচে ৩১ গড় ।
**সর্বনিম্ন ১০ ম্যাচ খেলে সব চাইতে ভাল ইকোনোমি এনামুল হক মনি ২.৭৬। ক্যারিয়ার ১০ ম্যাচে ১৮ উইকেট ।
** সব চাইতে বেশি ইনিংসে ৫ উইকেট শিকার করেন সাকিব আল হাসান ১৭ বার ।
**সব চাইতে বেশি ম্যাচে ১০ উইকেট সাকিব আল হাসানের, ২ বার।
** টেস্টে এক ইনিংসে সব চাইতে বেশি রান দিয়েছে তাইজুল ইসলাম ৬৭-১৩-২১৯-৪ । প্রতিপক্ষ শ্রীলংকা ২০১৮ সালে

চট্টগ্রামে। 

** এক সিরিজে সব চাইতে বেশি উইকেট মেহেদী মিরাজের । দুই ম্যাচের সিরিজে ১০৯- ১২- ২৯৭-১৯।
ব্যাক্তিগত রেকর্ডঃ উইকেট কিপার
**সব চাইতে বেশি ডিসমিসাল মুশফিকুর রহিম এর ৬০ ম্যাচে ৮৯ ইনিংসে ১০৬ টি । ক্যাচ ৯৩ এবং স্ট্যাম্পিং ১৩ ।
**এক ইনিংসে সব চাইতে বেশি ডিসমিসাল মুশফিকুর রহিম ৫ টি । ক্যাচ ৪ টি স্ট্যাম্পিং ১ প্রতিপক্ষ ইন্ডিয়া । ২০১০ সাল

ঢাকা তে ।

** এক ম্যাচে সব চাইতে বেশি ডিসমিসাল খালেদ মাসুদ পাইলটের ৭ টি । ক্যাচ ৫ টি , স্ট্যাম্পিং ২। প্রতিপক্ষ জিম্বাবুয়ে, হারারে তে ২০০৪ সালে ।
**এক সিরিজে সবচাইতে বেশি ডিসমিসাল মুশফিকুর রহিম ১১ টি। ক্যাচ ১০। স্ট্যাম্পিং ১। প্রতিপক্ষ জিম্বাবুয়ে ২০১৪ । ৩ ম্যাচের ৬ ইনিংসে।

ব্যক্তিগত রেকর্ডঃ ফিল্ডার

** টেস্টে সব চাইতে বেশি ক্যাচ মাহমুদ উল্লাহ রিয়াদ এর ৩৭ ম্যাচে ৩৪ ক্যাচ ।
** এক ইনিংসে সব চাইতে বেশি ক্যাচ ৪ টি সৌম্য সরকারের। প্রতিপক্ষ শ্রীলংকা ২০১৭ সালে ।
** এক ম্যাচে সব চাইতে বেশি ক্যাচ ৫ টি সৌম্য সরকার এর। প্রতিপক্ষ শ্রীলংকা ২০১৭ সালে ।
**এক সিরিজে সব চাইতে বেশি ক্যাচ ৬ টি সৌম্য সরকারের। প্রতিপক্ষ শ্রীলংকা ২০১৭ সালে । দুই ম্যাচ সিরিজ ।
বাংলাদেশের হয়ে সবচাইতে বেশি টেস্ট ম্যাচ খেলেছেন আশরাফুল ৬১ ম্যাচ ।
ক্যাপ্টেন হিসেবে সব চাইতে বেশি ম্যাচ মুশফিকুর রহিম ৩৪ ম্যাচ । যেখানে ৭ টি জয় ১৮ টি পরাজয় ৯ টি ড্র ।

টেস্টে বাংলাদেশ এর সর্বোচ্চ রানের জুটি।

** ১ম উইকেট ৩১২ রান । তামিম ইকবাল ও ইমরুল কায়েস । প্রতিপক্ষ পাকিস্তান। ২০১৫।
** ২য় উইকেটে ২৩২ রান। শামসুর রাহমান ও ইমরুল । প্রতিপক্ষ শ্রীলংকা । ২০১৪।
** ৩য় উইকেটে ২৩৬ রান। মমিনুল হক ও মুশফিক । প্রতিপক্ষ শ্রীলংকা । ২০১৮।
** ৪র্থ উইকেটে ১৮০ রান । মমিনুল ও লিটন । প্রতিপক্ষ শ্রীলংকা । ২০১৮।
** ৫ম উইকেটে ৩৫৯ রান। সাকিব ও মুশফিক। প্রতিপক্ষ নিউজিল্যান্ড । ২০১৭ ।
** ৬ষ্ঠ উইকেটে ১৯১ রান। আশরাফুল ও মুশফিক। প্রতিপক্ষ শ্রীলংকা । ২০০৭ ।
** ৭ম উইকেটে ১৪৫ রান । সাকিব -রিয়াদ। প্রতিপক্ষ নিউজিল্যান্ড ২০১০ ।
** ৮ম উইকেটে ১১৩ রান । মুশি ও নাঈম। প্রতিপক্ষ ইংল্যান্ড ২০১০
**৯ম উইকেটে ১৮৪ রান। রিয়াদ ও আবুল হাসান । ওয়েস্ট ইন্ডিজ ২০১২ ।
** ১০ম উইকেটে ৬৯ রান। রফিক ও শাহাদাৎ। প্রতিপক্ষ অস্ট্রেলিয়া ২০০৬ ।

Show More

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Close