ক্রিকেটবাংলাদেশ ক্রিকেট

রশিদের বল খেলতে সমস্যা হবেনা আমাদের : মিরাজ

প্রায় দুই মাস পরে আবারো আন্তর্জাতিক ক্রিকেট নামতে যাচ্ছে বাংলাদেশ দল। বাংলাদেশ দল টি২০ সিরিজ খেলবে আফগানিস্তানের বিপক্ষে। সেই ম্যাচে বাংলাদেশ দলের ভাবন আফগানিস্তানের স্পিন অ্যাটাক।

কেননা আফগানিস্তানের স্পিন অ্যাটাকে আছে রশিদ-মুজিবের মতো তারকা ক্রিকেটাররা। তবে এই নিয়ে চিন্তিত নন মিরাজ। মিরাজ বলেন,’ আসলে আফগানিস্তানের অবশ্যই স্পিন অ্যাটাক অনেক ভালো। তবে আমাদেরও যথেষ্ট অভিজ্ঞতা রয়েছে। বিশেষ করে সাকিব ভাই আছে, এরপরে রিয়াদ ভাইও ভালো বোলিং করে। এছাড়া যারা আছে পেস বোলার। সবমিলিয়ে বলবো যে আমাদের ওভারওল স্পিন এবং পেস কম্বিনেশন ভালোই আছে। আমাদের দলে অনেক অভিজ্ঞ ক্রিকেটার আছে। এটা আমাদের অনেকটাই এগিয়ে রাখবে।’

মিরাজ আরো বলেন ,’ রশিদ খানের সাথে তিনি একসাথে খেলছেন, অনুশীলন করেছেন এটাও অনেক বড় সুবিধা হবে। আর বিশেষ করে রশিদ খান তো আমাদের দেশে প্রিমিয়ার লিগে খেলেছেন, আমাদের ব্যাটসম্যানেরা সবাই ওর বিপক্ষে ভালো জানে। সুতরাং আমার মনে হয় না যে খুব বেশি সমস্যা হবে ইনশাল্লাহ।

 

পরিবার আসবে কেন? গালিগালাজ হবে কেন?

বাংলাদেশ জাতীয় ক্রিকেট দলের ওয়ানডে অধিনায়ক মাশরাফি এখন বাংলাদেশ ক্রিকেটের আইকনিক নাম। দেশের যে কোন সমস্যা নিয়ে কথা বলেন তিনি। দেশ বাসীকে সর্বদা দেশকে ভালবাসার অনুরোধ করেন, অনুপ্রেরণা দেন। দেশের ভবিষ্যত ক্রিকেটারদের অভিভাবক হিসেবে ছায়ার মতো কাজ করে নড়াইল এক্সপ্রেস।

সম্প্রতি বাংলাদেশের তরুণ ক্রিকেটারদের ফেসবুকসহ সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমের অসক্তি নিয়ে কথা বলেন মাশরাফি। তিনি বলেন,‘যেসব তরুণ ক্রিকেটার ফেসবুক ব্যবহার করে, তাদের প্রশংসা-সমালোচনা দুটোই মেনে নিতে হবে। নয়তো সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ব্যবহার না করাই ভালো। যে জিনিস মনোযোগে ব্যাঘাত ঘটায়, সেটা ব্যবহার না করাই বুদ্ধিমানের কাজ। দেখা যায়, কারও খারাপ পারফরম্যান্সের জন্য বাংলাদেশ হেরে গেলে তার পরিবারের সদস্যদেরও রেহাই দেওয়া হয় না। তাদের নিয়ে বাজে মন্তব্য শুরু হয়ে যায়। আসলে আমাদের মানসিকতার পরিবর্তন ভীষণ জরুরি। একটা ছেলে খারাপ খেললে তাকে নিয়ে সমালোচনা হতে পারে। কিন্তু এখানে তার পরিবার আসবে কেন? গালিগালাজ হবে কেন? কোনও কোনও তরুণ ক্রিকেটার হয়তো সমালোচনা মেনে নিতে পারে। তবে কেউ মেনে নিতে না পারলে তার সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ব্যবহার না করাই ভালো।’

প্রসঙ্গত, গত কয়েক বছর যাবত জাতীয় দলের বেশ কয়েকজন ক্রিকেটা সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে হেনস্থার শিকার হয়েছেন। কেউবা, সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ব্যবহার করে বিভিন্ন অনৈতিক কাজের সাথে জড়িয়ে পড়ছেন। যা দেশের ক্রিকেটের ভাবমূর্তি নষ্ট করে।

Show More

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Close