আন্তর্জাতিক ফুটবলফুটবল

কাতার ও থাইল্যান্ডে খেলবে জাতীয় ফুটবল দল

অবশেষে ঘুম ভেঙেছে বাংলাদেশ ফুটবল ফেডারেশনের (বাফুফে)। বাংলাদেশ জাতীয় ফুটবল দলকে নতুনভাবে তৈরি করতে প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ গ্রহণ করেছে বাফুফে। এ লক্ষ্যে কাতারে ক্যাম্প ও থাইল্যান্ডে দুটি প্রীতি ম্যাচ খেলার আয়োজন করা হয়েছে। এ ছাড়া লাওসের বিপক্ষে আন্তর্জাতিক প্রীতি ম্যাচের সূচি তো আগেই ঠিক করা আছে। এতে জাতীয় ফুটবল দলের কোচ অস্ট্রেলিয়ান অ্যান্ডো ওর্ডের মুখে ফুটেছে চওড়া হাসি।

সেই যে জাতীয় দলের দায়িত্ব নিয়ে কবে এসেছিলেন অ্যান্ডো, দল নিয়ে মাঠে নামারই সুযোগই পাচ্ছিলেন না। বয়সভিত্তিক দলের সঙ্গেই কাটছিল তাঁর সময়। অবশেষে আগামী মাসে লাওসের বিপক্ষে আন্তর্জাতিক প্রীতি ম্যাচ দিয়ে বাংলাদেশের ডাগ আউটে অভিষেক হবে অ্যান্ডোর। ২৭ মার্চ লাওসে গিয়ে ম্যাচটি খেলবে বাংলাদেশ দল। ২০১৬ সালের ১০ অক্টোবরে ভুটান ‘ট্র্যাজেডি’র পর এটা হবে জাতীয় দলের প্রথম ম্যাচ।
জাতীয় দলের ক্যাম্প আজ থেকেই শুরু হয়েছে বাংলাদেশ ক্রীড়া শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে (বিকেএসপি)। ক্যাম্প শেষে ২৮ ফেব্রুয়ারি বাংলাদেশ দল কাতারে যাবে। সেখানে দুই সপ্তাহের ক্যাম্পে ম্যাচও খেলা হবে। কাতার থেকে ১৪ মার্চ দেশে ফিরে জাতীয় দল আবার ১৯ তারিখে রওনা হবে থাইল্যান্ডে। সেখানে ২১ ও ২৩ মার্চ স্থানীয় ক্লাব দলের বিপক্ষে দুটি প্রীতি ম্যাচ খেলবে অ্যান্ডো ওর্ডের শিষ্যরা। এরপরই বহুপ্রতীক্ষিত লাওসের বিপক্ষে ম্যাচ।
আজ সংবাদ সম্মেলনে এ পরিকল্পনা ঘোষণা করেছেন জাতীয় দল ম্যানেজমেন্ট কমিটির চেয়ারম্যান কাজী নাবিল আহমেদ। মূলত সেপ্টেম্বরের সাফ ফুটবল সামনে রেখেই এ পরিকল্পনা।

অর্থের অভাবে সিরিজ আয়োজন অনিশ্চিত জিম্বাবুয়ের

জিম্বাবুয়ে ক্রিকেটে একসময় সুবর্ণ সময় ছিল। সেটা অতীত, জিম্বাবুয়ের দীর্ঘশ্বাসের কারণ। কিন্তু টাকার অভাবে হারিয়ে গেছে জিম্বাবুয়ে ক্রিকেটের জৌলুস।

বোর্ডের টাকা নেই—এমন কথা বেশ পুরোনো। অনেক তারকা ক্রিকেটার অভিমানে কাউন্টিও খেলতে চলে গিয়েছিলেন। তবে মাঝখানে জাতীয় দলের কিছু খেলোয়াড় ফিরে এসে অবস্থার পরিবর্তনের আশা জাগিয়েছিলেন। তবে বোর্ডের অবস্থার পরিবর্তন হয়নি।

জুলাই-আগস্টে পাকিস্তানের জিম্বাবুয়ে সফর বাতিল হওয়ার আশঙ্কা দেখা দিচ্ছে, কারণ সম্প্রচার থেকে টাকা পাচ্ছে না বোর্ড।

সফরটি যে বাতিল হয়ে যেতে পারে, নিরুপায় হয়ে সে রকম কথাই জানিয়েছেন বোর্ডের ব্যবস্থাপনা পরিচালক ফয়সাল হাসনাইন, ‘আর্থিক যেই অবস্থা চলছে, তাতে পাকিস্তান সিরিজ সম্ভব নয়। কারণ সম্প্রচার থেকে আমরা সেভাবে টাকা পাচ্ছি না। প্রোডাকশন বাবদ যে খরচ হয়, তাতেই অনেক লোকসান হয়ে যাচ্ছে।’

অর্থের অভাবে শুধু যে পাকিস্তান সফর বাতিল হওয়ার শঙ্কা দেখা দিচ্ছে, তেমনটা নয়। অস্ট্রেলিয়ার সফরও হুমকির মুখে। অস্ট্রেলিয়ার জিম্বাবুয়ে সফর করার কথা আগামি জুনে। দ্বিপক্ষীয় সিরিজের সূচিতে একটি টেস্টও আছে। আর এই সিরিজকেই ত্রিদেশীয় সিরিজের রূপ দেওয়ার কথা ভাবছে জিম্বাবুয়ে। টেস্ট বাদ দিয়ে অন্তত সংক্ষিপ্ত ফরম্যাটে যাতে খেলাটি হয়, সেদিকেই নজর দেশটির।

Show More

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Close