আন্তর্জাতিক ক্রিকেটক্রিকেট

আজীবন নিষিদ্ধই থেকে যাচ্ছেন শ্রীশান্ত

শ্রীশান্তের আজীবন নিষেধাজ্ঞা নিয়ে যেন কয়েকদফা নাটকই হয়ে গেল। ইন্ডিয়ান প্রিমিয়ার লিগের (আইপিএল) ষষ্ঠ আসরে স্পট ফিক্সিংয়ে জড়িত থাকার অভিযোগ প্রমাণ হওয়ায় ভারতের ডানহাতি এই পেসারকে সব ধরনের ক্রিকেট থেকে আজীবন নিষিদ্ধ করা হয়। সেই নিষেধাজ্ঞার মেয়াদ কমাতে শুরু থেকেই দৌড়ঝাঁপ করছেন শ্রীশান্ত। নিষেধাজ্ঞা তুলে নিতে কেরালা হাইকোর্টে আবেদন করে পেয়েছিলেন সবুজ সংকেতও। সেই কেরালা হাইকোর্টই শ্রীশান্তের আজীবন নিষেধাজ্ঞার শাস্তি বহাল রেখেছেন!
আরোপিত নিষেধাজ্ঞা তুলে নিতে গেল ফেব্রুয়ারিতে কেরালা হাইকোর্টের মাধ্যমে বোর্ড অব কন্ট্রোল ফর ক্রিকেট ইন ইন্ডিয়া (বিসিসিআই) বরাবর আবেদন করেন শ্রীশান্ত। এই আবেদনের পক্ষে শ্রীশান্তের যুক্তি ছিল, ‘আমি নির্দোষ। আমার বিরুদ্ধে আনিত অভিযোগের উপযুক্ত প্রমাণাদি নেই।’ যদিও তার সেই আবেদন নাকচ করে দেয় বিসিসিআই। বিসিসিআই নাকচ করে দিলেও কেরালা হাইকোর্টের বিচারপতি মোহাম্মদ মুশতাক তা গ্রহণ করেন। চলতি বছরের আগস্টে তিনি বিসিসিআইকে আদেশ করেন শ্রীশান্তের নিষেধাজ্ঞা তুলে নিতে। কারণ এই অভিযোগের বিরুদ্ধে উপযুক্ত প্রমাণাদি বিসিসিআই দেখাতে পারেনি।
বিচারপতি মোহাম্মদ মুশতাকের দেওয়া এই রায়ের বিপক্ষে চ্যালেঞ্জ করে বিসিসিআই। সেই আবেদনপত্রে বিসিসিআই জানায় শ্রীশান্তের নিষেধাজ্ঞা তুলে নিলে তা তাদের নীতি নির্ধারণী কমিটির নিয়মের ব্যাঘাত ঘটাবে। আবেদন আমলে নিয়ে কেরালা হাইকোর্ট দুই বিচারপতি নবনীতি প্রসাদ ও রাজা বিজয়রাঘবনকে দিয়ে রায় পুনঃবিবেচনার সিদ্ধান্ত নেন।
মঙ্গলবার দুই বিচারপতির এই বেঞ্চ জানায়, শ্রীশান্তের এমন আচরণ বিচারের স্বাভাবিক প্রক্রিয়াকে ব্যাহত করেছে। একইসঙ্গে তা বিসিসিআইয়ের দুর্নীতি বিরোধী নিয়মের পরিপন্থী। বিসিসিআইয়ের নিষেধাজ্ঞার বিরুদ্ধে প্রথমে দিল্লি হাইকোর্টে আবেদন করেন শ্রীশান্ত। উপযুক্ত তথ্য প্রমাণের অভাবে ২০১৫ সালের জুলাইয়ে তাকে নির্দোষ ঘোষণা করেন দিল্লি হাইকোর্ট। সেই বেঞ্চ আরও জানায়, দিল্লী হাইকোর্টের সেই রায় এখানে গ্রহণযোগ্য নয়। কমছে না শ্রীশান্তের নিষেধাজ্ঞার মেয়াদ, সব ধরনের ক্রিকেট থেকে দূরেই থাকতে হচ্ছে তাকে।

Show More

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Close